ম্যাচ জি‌তেও অঝোরে কাঁদলেন মেসি!!

106
Advertisement

: স্পোর্টস ডেস্ক : করেছেন দুর্দান্ত এক হ্যাটট্রিক, ভেঙেছেন ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি পেলের রেকর্ড। তাও আবার দীর্ঘ ১৮ মাস পর ফেরা নিজ দেশের দর্শকদের সামনে। কোথায় উল্লাসে ফেটে পড়বেন, উল্টো অঝোরে কাঁদতে শুরু করলেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক লিওনেল মেসি। তার হ্যাটট্রিক ছাপিয়ে এটিই হয়ে উঠলো বড় ঘটনা।

ক্লাব ফুটবলে হিরো, জাতীয় দলে জিরো- দীর্ঘদিন এই অপবাদ সইতে হয়েছে আর্জেন্টাইন জাদুকর লিওলেন মেসিকে। জাতীয় দলকে একের পর এক ফাইনালে তুলেও শিরোপা জিততে না পারার ব্যর্থতার দায় পুরোটাই দেয়া হতো মেসির কাঁধে। সেসব পেছনে ফেলে অবশেষে জাতীয় দলকেও চ্যাম্পিয়ন করেছেন তিনি।

গত জুলাই মাসে ব্রাজিলের মাঠ থেকে অপরাজিত থেকেই কোপা আমেরিকার শিরোপা জয় করে ফিরেছেন মেসি। কিন্তু করোনাভাইরাসের বিধিনিষেধের কারণে সেভাবে নিজ দেশের মানুষের সঙ্গে শিরোপা উল্লাস করতে পারেনি আর্জেন্টিনা। সেই সুযোগ মিললো প্রায় দুই মাস পর, বলিভিয়ার বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচে।

শুক্রবার বাংলাদেশ সময় ভোরে নিজেদের ঘরের মাঠ এল মনুমেন্টালে বলিভিয়াকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে আর্জেন্টিনা। দলের জয়ে গোল তিনটি একাই করেছেন মেসি। জাতীয় দলের হয়ে এটি তার সপ্তম হ্যাটট্রিক আর সবমিলিয়ে করলেন মোট ৫৫টি হ্যাটট্রিক।

এই হ্যাটট্রিকের সুবাদে আন্তর্জাতিক ফুটবলে ৭৭ গোল করা পেলেকে ছাড়িয়ে গেছেন মেসি। তার গোল এখন ৭৯টি। কিন্তু ম্যাচ শেষে হ্যাটট্রিক ও জয়ের আনন্দে মাতোয়ারা হওয়ার বদলে উল্টো অঝোরে কাঁদতে থাকলেন মেসি। পাশে থাকা সতীর্থরাও তখন কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েন।

তবে খানিক পরেই বোঝা যায় মেসির আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ার কারণ। মাইকে তখন ঘোষণা হচ্ছিল মেসিদের কোপা আমেরিকা জয়ের কথা। প্রায় দুই মাস পর নিজ দেশের মানুষদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে শিরোপা উল্লাস করতে পারায় যেনো কান্নাই থামছিল না মেসির।

সে সময় তার হাতে তুলে দেয়া হয় ব্রাজিল থেকে জিতে আনা কোপা আমেরিকার শিরোপাটি। দুই মাস আগে ঐতিহাসিক মারাকানায় যেভাবে শিরোপা উঁচিয়ে উল্লাস করেছিলেন মেসি ও তার সতীর্থরা, ঠিক সেভাবেই এবার এল মনুমেন্টালে নিজেদের সমর্থকদের সামনে শিরোপা তুলে ধরেন আর্জেন্টাইন জাদুকর।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে এ পুরো সময়ের ভিডিও পোস্ট করে বিখ্যাত ফুটবলভিত্তিক সাংবাদিক ফাব্রিজিও রোমানো লিখেছেন, ‘আজকের দিনের সেরা ভিডিও। অবশেষে আর্জেন্টাইন মানুষের সঙ্গে কোপা আমেরিকা জয় উদযাপন করতে পেরে খুশির কান্নায় মেসি।’

‘এবং অবশ্যই এটি আজ রাতে মেসির অনিন্দ্য সুন্দর হ্যাটট্রিক করে লাতিন অঞ্চলের সর্বোচ্চ গোলস্কোরার হওয়ার চেয়েও বেশি সুন্দর।’